আড্ডা, দীর্ঘ ৮ বছর অতিক্রম করে এবার ৯’তে পা। প্রথমে আড্ডা যখন শুরু হয়েছিল তখন এটি ছিল একটি দ্বি-মাসিক প্রিন্টেড পত্রিকা। আমরা সমস্ত কিছু কভার করে একেকটি সংখ্যা প্রকাশ করতাম। প্রথম থেকেই চেষ্টা ছিল আড্ডা প্রিন্ট এবং ই-ভার্সান – এই দুটিতেই কাজ করে যাওয়া। কিন্তু কোনও কিছু শুরু করা সহজ হলেও ধরে রাখা কঠিন। আড্ডা’ই ছিল প্রথম মোবাইল অ্যাপভিত্তিক পত্রিকা যার ডেইলি সংখ্যা প্রকাশিত হতো। ডেইলি আড্ডা প্রায় ৩০০ দিন অতিক্রম করার পর বন্ধ হয়ে যায়। একার দ্বারা কাজ চালিয়ে যাওয়া এই সম্পাদকের পক্ষে সম্ভব হয়নি। তবে পাঠক এবং লেখকেরা সে দিনের কথা আজও ভোলেননি।

এরপর আড্ডা তার ঘরানা পরিবর্তন করে বিষয়ভিত্তিক পত্রিকায় পরিণত হয় এবং একটি ষাণ্মাসিক পত্রিকা হিসাবে আত্মপ্রকাশ করে। বিভিন্ন সংখ্যা প্রবল লোকপ্রিয় হয়ে ওঠে – সুইসাইড, পাপ, ফেলে আসা অতীতের আড্ডা, জমিদার বাড়ির সেকাল একাল, চাকমা সুলুক সন্ধানে ইত্যাদি। পরবর্তীতে দুর্গা, নবদুর্গা এবং এবারের দশমহাবিদ্যা সংখ্যার কথা তো সকলেরই জানা। তবে আড্ডা কখনোই একটা বিশেষ শ্রেণীর হতে পারে না। আড্ডা সবাইকে নিয়ে সবার সাথে চলার গল্প। এই কারণেই আবারও ই-ভার্সানে আড্ডা’র ফিরে আসা। ফিরে আসা একটি মাসিক পত্রিকা হিসেবে… এবং সাথে অবশ্যই প্রিন্টেড ভার্সান যেভাবে চলছিল সেভাবেই চলবে।

আড্ডা’র ই-ভার্সানকে আমরা একটু অন্যভাবে সাজাতে চাইলাম, আশাকরি সবার ভালো লাগবে। অন্যরকম কী আছে এতে? এখানে থাকছে দুটি সেগমেন্ট। (১) সাধারণ লেখাপত্র, খবরাখবর, বই আলোচনা ইত্যাদি। (২) দ্বিতীয় সেকশনটি এক্সক্লুসিভ। এই সেকশনটির বিভিন্ন লেখা পড়তে আপনাকে কিছু অন্তত খরচা করতে হবে, যা সর্বনিম্ন ২০ টাকা থেকে শুরু। এই সেকশনে আপনি লেখাগুলি পড়ার সঙ্গে সঙ্গে ইচ্ছে হলে শুনতেও পারবেন।

আড্ডা’র এই ই-ভার্সানে আপনারা আপনাদের সংস্থার বা বইপত্রের বিজ্ঞাপনও দিতে পারবেন যেখান থেকে আপনারা কনভার্সনও বুঝতে পারবেন। অর্থাৎ পয়সা উসুল। বিজ্ঞাপনের রেট চার্ট এখানেই পেয়ে যাবেন। আরও অনেক কিছু বলার, যা হয়তো ভবিষ্যতে বলবো।

আপাতত এটুকুই…

 

 

 

 

 

কার্যনির্বাহী সম্পাদক – আড্ডা